আমাজন বা অন্য যে কোনো অনলাইন প্লাটফর্ম্ থেকে বাংলাদেশে কেনাকাটা করার সহজ উপায়

Raisul Mushfeq Siddiki


বাংলাদেশে পেপাল না থাকায় আর শিপিং এর সমস্যার কারনে আমাজন, ই-বে ইত্যাদি আন্তর্জাতিক প্লাটফর্ম থেকে বাংলাদেশে কেনাকাটা করা অনেকটাই দু:সাধ্য ব্যাপার। আমার নিজেরও আমাজন থেকে অনেক কিছু কেনার ইচ্ছা থাকলেও এসব ঝামেলার কারনে কিনতে পারছিরাম না। কিন্তু বেশ কয়েকমাস আগে ব্যাকপ্যাক ব্যাং নামের এক বাংলাদেশী স্টার্টআপ কোম্পানী সম্পর্কে জানতে পারি আর তার পর থেকে আমার এই সব সমস্যার সমাধান পেয়ে যাই। ব্যাকপ্যাকব্যাং (BackpackBang.com) খুব কম সময়ে এবং প্রায় দুই সপ্তাহের মধ্যেই আমাজন/ই-বে থেকে যে কোনো পন্য শপিং করে বাংলাদেশে এনে দেওয়ার দায়িত্ব নিয়েছে।
আমাজন/ই-বে থেকে কেনাকাটার জন্য আমি আগে একটি ফেসবুক গ্রুপ এর সাহায্য নিতাম। তাদের সার্ভিস তেমন খারাপও ছিলো না কিন্তু তাদের ডেলিভারি টাইম আর খরচ অনেক বেশি ছিলো। অনেক সময় প্রোডাক্টের দামের দ্বিগুনও খরচ করতে হতো। কিন্তু ব্যাকপ্যাক বিছুটা ভিন্ন পন্থায় আমেরিকা থেকে প্রোডাক্ট বাংলাদেশে নিয়ে আসে বিধায় তাদের সার্ভিসেএ খরচও অনেক কম।
ব্যাকপ্যাক এর ওয়েবসাইটে গিয়ে আপনি কোন প্রোডাক্টটি কিনতে চান তা সার্চ করে নিন। সার্চ রেজাল্টে ওই প্রোডাক্টটি বাংলাদেশে আনতে কত খরচ পরবে তা দেখাবে। ব্যাকপ্যাকে যে প্রাইসিং দেখানো হয় তা আমাজন থেকেই সরাসরি নেওয়া এবং এই প্রাইসিং এর ভেতরই শিপিং, সার্ভিস চার্জ, ট্যাক্স ইত্যাদি সহ দেখানো হয়। এরপর আপনি বিকাশ, ডিবিবিএল নেক্সাস কার্ড বা ব্যাংকের মাধ্যমে ব্যাকপ্যাকে পেমেন্ট করার পরপ্রোডাক্টটি তারা আমেরিকা থেকে আমাজন ওয়েবসাইট হতে কিনে তা বাংলাদেশে ফিরতি ট্রাভেলারদের মাধ্যমে চুক্তিভিত্তিকভাবে প্রোডাক্টগুলো পাঠিয়ে দেয়। আর এভাবেই এরা মাত্র ২ দুই সপ্তাহের ভেতর ও কম খরচে প্রোডাক্টটি আমনার কাছে পৌছে দিতে পারে।
ব্যাকপ্যাকের নতুন ব্যাবহারকারীদের সাইনআপ করলেই ৫০০ টাকা বোনাস ক্রেডিট হিসেবে দেওয়া হয়। এই ৫০০ টাকা তারা আপনাকে বিকাশ করেও দিবে না বা ফ্লেক্সিলোডও করবে না। এই ৫০০ টাকা আপনি ব্যাকপ্যাকের মাধ্যমে যে কোনো প্রোডাক্ট কেনার জন্য ব্যায় করতে পারবেন।। আর আপনি যদি ট্রাভেলার হিসেবে আমেরিকা থেকে বাংলাদেশে আসার সময় ব্যাকপ্যাকএর প্রোডাক্ট নিয়ে আসেন তাহলে বোনাস ক্রেডিট হিসেবে ১৫০০ টাকা সহ প্রোডাক্ট প্রতি কমিশনও তারা দিয়ে থাকে। আপনি যদি ট্রাভেলার না-ও হোন তবুও সেই বোনাস ৫০০ টাকা আপনি যে কোনো প্রোডাক্ট কেনার ক্ষেত্রে ব্যাবহার করতে পারেন, তবে যেই প্রোডাক্টই কিনুন না কেন সেই প্রোডাক্ট এর দামের ৫০% কাটবে বোনাস ক্রেডিট থেকে আর বাকী ৫০% আপনাকে পে করতে হবে।
এটা কোনো ধরনের স্ক্যাম নয় কেননা আমি নিজেই ব্যাকপ্যাক থেকে বেশ কয়েকবার প্রোডাক্ট আনিয়েছি এবং আরও একটা প্রোডাক্ট প্রসেসিংএ আছে। আমি জানি এই ৫০০ টাকা বোনাস এর বিষয়টা অনেকটা ফেসবুকে কমেন্টে দেখা ২ মিনিটে ৫০০ টাকা ইনকাম করুন পোস্টের মতো লাগছে কিন্তু আসলে এটা তেমন নয়।
যাইহোক, আপনার বোনাস ৫০০ ক্রেডিট টাকা কিভাবে ব্যাবহার ককরবেন তা একটু বলে নেই। একাউন্ট সাইন আপ করার সথে সাথেই আপনি এই ৫০০ টাকা আপনার বাকপ্যাক একাউন্টে পাবেন। এরপর আপনার কাঙ্খিত প্রোডাক্টটি খুজে বের করে Shopping Cart এ এড করুন। এরপর প্রোডাক্টটি Checkout করার সময় Apply Backpack Credit বাটন এ চাপ দিন এবং আপনার ইমেইল ও মোবাইল নাম্বার ভেরিফাই করুন। এরপর প্রোডা্ক্টটি Checkout করুন। ইমেইল ও মোবাইল নম্বর ভেরিফাই করার সময় গুগল ক্রোম ব্রাউজার ব্যাবহার করুন, ফায়ারফক্সে মাঝে মধ্যে সমস্যা দেখা যায়।
ব্যাকপ্যাকে নতুন একটি একাউন্ট খোলার জন্য এখানে ক্লিক করুন। অতি উৎসাহি হয়ে ব্যাকপ্যাকে কারও রেফারেল লিংক ছাড়া সাইনআপ করে পরে বোনাস ক্রেডিট না পেলে আমাকে দোষারপ করতে পারবেন না কিন্তু।
আশা করি এই সার্ভিসটি ব্যাবহার করে অনেকেই তাদের প্রয়োজনীয় বা শখের জিনিসগুলো আন্তর্জাতিক মার্কেটপ্লেসগুলো থেকে সহজেই নিয়ে আসতে পারবে।
ও, হ্যা আরও একটা কথা যোগ করতে ভুলে গেছি, ব্যাকপ্যাকে সার্চ করে যদি আপনি কোনো প্রোডাক্ট খুজে না পান তাহলে আপনি যেখান থেকে প্রোডাক্টটি কিনতে চান সেই লিংকটি মেনুয়ালি দিয়েও ব্যাকপ্যাকব্যা এর মাধ্যমে সেই প্রোডাক্টটি কিনতে পারবেন।
সময় নিয়ে পোস্টটি পড়ার জন্য সবাইকে ধন্যবাদ।
নোট: ব্যাকপ্যাক এর এই রেফারেল সিস্টেম অনেকে মিসইউজ করার জন্য ব্যাকপ্যাক থেকে আ্পাতত ক্রেডিট দেওয়া বন্ধ করে দিয়েছে। তাই এই রেফারাল লিংক থেকে সাইন আপ করলে এখন আপনার ও কোনো ক্রেডেট যোগ হবে না, আমারও কোনো লাভ হবে না। তবে কেনাকাটা করতে পরবেন নিশ্চিন্তে, এইটুকু গ্যারান্টি দিতে পারি.. (আপডেট: ০৬-আগস্ট-২০১৬)

About the Author

Raisul Mushfeq Siddiki / Author & Editor

I am currently a student. Living in Bangladesh

0 টি মন্তব্য:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন